দেশের সকল সরকারি চাকরির তথ্য সবার আগে মোবাইলে নোটিফিকেশন পেতে মোবাইলে রাখুন Android App: Jobs Exam Alert 

বিশ্বের অন্যতম সেরা খেলোয়াড়দের মধ্যে নেইমার একজন। সেই নেইমারকে ২০২২ কাতার বিশ্বকাপে হারাতে পারে ব্রাজিল।

কাতার বিশ্বকাপের আর মাত্র ৩ মাস বাকি। এরই মধ্যে দলটির অন্যতম সেরা খেলোয়াড় নেইমারকে হারাতে পারে সেলেকাওরা।

সান্তোস থেকে বার্সেলোনায় যোগ দেওয়ার প্রক্রিয়ায় জালিয়াতি ও দুর্নীতির অভিযোগের এক মামলায় বিচারের মুখোমুখি হতে হচ্ছে নেইমারকে। স্প্যানিশ পত্রিকা এল পায়েস জানাচ্ছে, আগামী ১৭ অক্টোবর স্পেনের একটি আদালতে শুনানি শুরু হবে। আর অভিযোগ প্রমাণিত হলে নেইমারকে অন্তত দুই বছরের কারাদণ্ড দেওয়ার জন্য স্প্যানিশ আদালতের আবেদন জানিয়েছেন দেশটির আয়কর বিভাগ।এরইসঙ্গে ১০ মিলিয়ন ইউরো জরিমানাও গুণতে হতে পারে ব্রাজিলিয়ান এই ফরোয়ার্ডকে।

ব্রাজিলের বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান ডিআইএস বুধবার এক বিবৃতিতে এসব তথ্য জানিয়েছে। মামলায় নেইমার ছাড়াও অভিযুক্তের তালিকায় রয়েছেন নেইমারের বাবা, মা ও তাদের পারিবারিক কোম্পানি এনঅ্যান্ডএন।

এরই পাশাপাশি অভিযুক্ত করা হয়েছে সান্তোসের সাবেক ম্যানেজার ওদিলিও রদ্রিগেজ, বার্সেলোনার তখনকার সভাপতি সান্দ্রো রোসেল ও সহ-সভাপতি জোজেপ মারিয়া বার্তোমেউকে। গোটা বিষয়টি ৯ বছর আগে ২০১৩ সালের। সে সময় সান্তোস থেকে নেইমারকে কিনতে ৫ কোটি ৭১ লাখ ইউরো খরচ হওয়ার কথা প্রথমে জানিয়েছিলেন রোসেল।

কিন্তু পরে বার্সেলোনা স্বীকার করে, খেলোয়াড় ও তার বাবার সঙ্গে অন্যান্য চুক্তির কারণে ট্রান্সফার ফি বেড়ে ১০ কোটি ইউরোর কাছাকাছি হয়ে যায়। এরপর নেইমার আর বার্সেলোনার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনে ব্রাজিলের বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান ডিআইএস। এ কোম্পানির কাছে নেইমারের ক্রীড়া স্বত্বের ৪০ শতাংশ ছিল। প্রতিষ্ঠানটির অভিযোগ, নেইমারের বার্সেলোনায় যোগ দেওয়ার মূল ট্রান্সফার ফি গোপন করায় তাদেরকে ঠকানো হয়েছে। এতে ১৫০ মিলিয়ন ইউরো ফাঁকি দিয়েছেন নেইমার। নেইমার ও বার্সেলোনা কর্তৃপক্ষ অবশ্য শুরু থেকেই অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে। নেইমার, তার অভিভাবক ও বার্সেলোনা তাদের বিরুদ্ধে মামলা চালানোর বিরুদ্ধে আপিলও করেছিল। তবে ২০১৭ সালে স্পেনের হাই কোর্ট সেই আপিল খারিজ করে দেয়। ফলে বিচারের পথ উন্মুক্ত হয়ে যায়। এখন বিশ্বকাপ শুরুর মাসখানেক আগেই কারাদণ্ডে দণ্ডিত হওয়ার হাত থেকে বাঁচাতে জোর চেষ্টা চালাতে হবে নেইমারকে।