দেশের সকল সরকারি চাকরির তথ্য সবার আগে মোবাইলে নোটিফিকেশন পেতে মোবাইলে রাখুন Android App: Jobs Exam Alert 

এবার আইপিএলে ও অধিনায়কত্ব ছাড়ছেন বিরাট কোহলি। বিশ্বকাপ টি-টোয়েন্টি পর্যন্ত ক্রিকেটের ক্ষুদ্রতম সংস্করণে  অধিনায়ক থাকবেন এমনটিই বলেছিলেন বিরাট কোহলি। তারপর তিনি নেতৃত্ব ছেড়ে দিবেন। 

তবে বিরাট কোহলি কাল ঘোষণা দেন,আইপিএলে এ মৌসুমের পর নিজের ফ্র্যাঞ্চাইজি রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর (আরসিবি) অধিনায়কত্বও আর করবেন না। কোহলির এমন সিদ্ধান্ত শুনে অবাক হয়েছেন। কারণ অষ্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড, দক্ষিণআফ্রিকা, নিউজিল্যান্ড ইত্যাদি বড় বড় দল গুলোকে তার নেতেৃত্বে জয় পেয়েছে ভারত। আর অধিনায়ক হিসেবে প্রথম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলবে সে। এটা দিয়েই টি-টোয়েন্টি অধিনায়কের ক্যারিয়ার শেষ হবে তার।

ভারতের বিসিসিআইয়ের সাবেক কর্মকর্তা কোহলির নেতৃত্ব ছেড়ে দেওয়া নিয়ে বলেন যদি দায়িত্বের ভার চেপে বসায় কোহলি দেশের টি–টোয়েন্টি দলের অধিনায়কত্ব ছেড়ে দেন, তাহলে আইপিএল ফ্র্যাঞ্চাইজির অধিনায়কত্বও তো তাঁর ছেড়ে দেওয়া উচিত। তিনি আরও বলেন আন্তর্জাতিক ম্যাচ যদি চাপের হয়ে থাকে তাহলে ক্ষুদ্র পরিসরের আইপিএল টি-টোয়েন্টি ও কম চাপের নয়। যদি দায়িত্বের ভার চেপে বসায় কোহলি দেশের টি–টোয়েন্টি দলের অধিনায়কত্ব ছেড়ে দেন, তাহলে আইপিএল ফ্র্যাঞ্চাইজির অধিনায়কত্বও তো তাঁর ছেড়ে দেওয়া উচিত। 

এই কথা হয়তো কোহলির কানে গিয়েছে। তাই তিনি বেঙ্গালুরুর এক টুইটে জানায় আগামী মৌসুমে আইপিএলের অধিনায়কত্ব থেকেও সরে দাঁড়াচ্ছেন। তিনি বলেন, ‘আমি সবাইকে জানাতে চাই, অধিনায়ক হিসেবে আরসিবিতে এটাই আমার শেষ মৌসুম। আজ বিকেলেই (গতকাল) দলের সবার সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। আমি বেশ কিছুদিন ধরে এ সিদ্ধান্তটা নিয়ে ভাবছিলাম।’

এ প্রসেঙ্গে ব্রায়ান লারা বলেন খেলোয়াড়ি জীবনে আমাকেও এসব সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়েছিল; যার কারণে আমি বেশ কয়েকবার অধিনায়কত্ব থেকে সরে দাঁড়িয়েছিলাম। কারণ এটি খুব, খুব চাপ হয়ে যাচ্ছিল।  আমি নিশ্চিত সিদ্ধান্তটি শুধু কোহলির ব্যক্তিগত নয়। এটি এমন একটি সিদ্ধান্ত, যা ভারতীয় ক্রিকেটকেও সাহায্য করবে।’